fap.desi logo
Introduction
রোববার। ছুটি থাকায় মেসেই শুয়ে দিনটা কাটাচ্ছি।এমন সময় আমার জিগরি দোস্ত রকির ফোন এলো।আমি ফোন রিসিভ করেই বললাম, কিরে বানচোদ এতোদিন পর আমার খোজ হলো? কি খবর তোর? বল? রকি বললো,এইতো আছি দোস্ত কোনোরকম তুই মেসে চলে যাওয়ায় আমি তো একা।পাড়ার  কোনো ছেলেদের সাথে মিশি না আমি তুই তো জানিস।আমি বললাম,  হ্যা সেটা তো জানিই।কার সাথেই বা মিশবি সবকয়টা মাগিবাজ, পাড়ার মা মাসি কাউকেই ছাড়ে না মাদারচোদরা।
রকি বললো,অভি একটা খারাপ ঘটনা ঘটে গেছে রে। তুই কিছু শুনেছিস? আমি বললাম, না তো দোস্ত। কি হয়েছে কি বল।আর ঘটনা কার  বিষয়ে?
রকি বললো,তোর মায়ের বিষয়ে।
শুনে আমার বুকটা ছ্যাত করে উঠলো,আমার মায়ের কি হলো ভগমান?
আমি:আমার মায়ের কি হয়েছে রকি? প্লিজ বল।মা সুস্থ আছে তো?
রকি: কি ভাবে যে বলি তোকে, আসলে তুই শুনে অনেক কষ্ট পাবি। 
আমি:ভাই প্লিজ বল।
রকি: সুদিপ দা সাধনা কাকিমার মানে তোর মায়ের পেট করে দিয়েছে ?।
আমি: কি! কিভাবে হলো এটা!(কেঁদে ফেললাম)। আমি বিশ্বাস করি না।আমার সতী বিধবা মা কখনই এমন খারাপ কাজ করতে পারে না।
রকি: কাদিস না অভি। তুই ধৈর্য ধর প্লিজ।তোর মায়ের কোনো দোষ নেই। সব দোষ তোর জেঠাতো দাদা সুদিপের।
আমি: কিভাবে কি হলো ভাই?
রকি: এবার দূর্গাপুজার দশমীর পরের দিন তোর মা বিষ খেয়ে ছিলো কেনো জানিস?
আমি : ঠাকুমা বলেছিলো মায়ের সাথে বড় জেঠির ঝগড়া হয়েছিলো তাই।
রকি: তোকে মিথ্যা বলেছে।তোর মনে আছে বিসর্জনের রাতে তুই আমাদের বাড়ি ছিলিস।সেই রাতে তোদের বাসায় তোর ঠাকুমা আর তোর মা ছিলো শুধু তুই তো জানিস।
আমি:হুম মনে পড়ছে।
রকি: সেদিন রাতে সুদিপ দা তোর সতী, পুজারী, বিধবা মা সাধনা বসুর ইজ্জত নষ্ট করেছে।নিজের বিধবা  মেজো কাকিমাকে সারা রাত ধরে খুবলে খেয়েছে সুদিপদা।আর এই নৃশংস কাজে সহযোগিতা করেছে তোরই ঠাকুমা। নিজের প্রতি এতো অবিচার সহ্য না করতে পেরে সকালে তোর বিষ খেয়েছিলো।তারপর তো তোর সব জানা,তোর মাকে নিয়ে আমরা কত ছোটাছুটি করলাম হাসপাতাল নার্সিংহোমে।ভগমানের কৃপায় কাকিমা সুস্থ হয়ে ওঠেন দ্রুত। কিন্তু একটা জিনিস মিসটেক হয়ে গিয়েছিলো রে। মাদারচোদটা তোর মায়ের ভিতরে বীর্য্যপাত করেছিলো।কাকিমা ও পিল নেই নি।ডাক্তার বা আমরা তো তখন কেউই জানতাম না। তাই পিলটা কাকিমাকে খাওয়ানো হয়েছিলো না।কিন্তু আন্টিও বুঝতে পারে নি।এর ফলে কাকিমার পেটে সুদিপদার বাচ্চা চলে এসেছে।আর যখন জানতে পারলো তখন আর সময় হাতে নেই। তোর মায়ের সাত মাস চলছে রে।ডাক্তার বলেছে এখন বাচ্চা নষ্ট করা যাবে না।
তাই তোর পরিবার সিদ্ধান্ত নিয়েছে আজ সন্ধাই সুদিপদার সাথে তোর মায়ের বিয়ে দেওয়া হবে।
আমি: (আমি প্রচন্ড কাঁদতে লাগলাম)আমি এই বিয়ে মানি না।আমি সুদিপের জেলের ঘানি টানাবো।আমি মামলা করবো।সুদিপদা বাবা বেঁচে থাকতেই মাকে ডিস্টার্ব করতো।বাথরুমের ফুটো দিয়ে মায়ের নগ্ন দেহ দেখতে গিয়ে বাবার হাতে কত মার ও খেয়েছে।ওকে ছাড়বো না।

রকি: প্লিজ তুই শান্ত হ অভি। দেখ যে বাচ্চা টা আসছে পৃথিবীতে তার তো কোনো দোষ নেই।বাচ্চাটার বাবার পরিচয়টা পাওয়া জরুরি। কারন মামলা করে আর তো তোর মায়ের ইজ্জত ফিরে পাবি না।তাই বিয়ে হচ্ছে হোক।সুদিপদা ও সবকিছু ছেড়ে দিয়ে তোর মায়ের সাথে সংসার করতে চাই।ভালো পথে আসতে চাই।তুই টেনশন নিস না।বাড়ি আয় ধীরে সুস্থে।কথা হবে। রেখে দিলাম বাই।

সোমবার আমার একটা পরীক্ষা থাকার কারনে দুদিন পর মঙ্গলবার বাড়িতে গেলাম।বাসায় গিয়ে মাকে কোথাও দেখতে পেলাম না।দোতলায় দুইটা রুম আমাদের। একটা আমি থাকি। আর একটাতে বাবা মা ও ছোটবোনটা থাকতো। তাই নিজ রুমের দিকে যাবো এমনসময় ঠাকুমা এসে বললো,অভি এসেছিস? ভালো আছিস তুই?
আমি: নিজেকে নিয়ন্ত্রণ না করতে পেরে ঠাকুমা কে জড়িয়ে ধরে কাঁদতে শুরু করলাম।ঠাকুমা বললো,কাদিস না তুই একদম কাদবি না।ঠাকুর যা করে সবার মঙ্গলের জন্য করে।তুই ফ্রেশ হয়ে রুমে যা আমি তোর জন্য জলখাবার নিয়ে আসছি।
আমি: মা কোথায়? মায়ের সাথে দেখা করবো আমি।
ঠাকুমা: তোর মা উপরেই আছে।তুই তোর রুমে যা।তোর মাকে এখন ডাকার দরকার নেই।ওঘরে সুদিপও আছে।
আমি দোতলায় উঠতেই দেখি মায়ের রুম ভিতর থেকে বন্ধ করা।আমি আমার রুমে চলে গেলাম।ফ্রেশ হতে বাথরুমে গেলাম।
আমাদের বাথরুমে দুইটা দরজা আছে। একটা বাব মায়ের রুমের দরজা একটা আমার রুমের সাথে। সাধারণত বাবা মা যখন বাথরুম ইউজ করে তখন আমার রুমের দরজাটা সিটকিনি দিয়ে দেয় ভিতর থেকে আর যখন আমি বাতরুম ইউজ করি তখন আমি বাবা মায়ের রুমের দরজা সিটকিনি দিয়ে দিই।কিন্তু বাথরুমে ঢুকতেই দেখি মায়ের রুমের দিকে দরজা টা খোলা। একটু সামনে যেতেই ফিসফিস আওয়াজ শুনতে পেলাম।কৌতূহল করে আমি দরজার সামনের দিকে উকি দিয়ে দেখি যা তা অবস্থা। সুদিপদা মাকে পুরো উলঙ্গ করে পাগলের মতো চুদছে। নিজের থেকে ১৫-১৬ বছরের বড় ৪০ বছর বয়সী নধর  শরীরের আপন বিধবা মেজো কাকিমাকে ফাঁদে ফেলে বিয়ে করে দিনদুপুরে উদোম করে গুদ মারছে।পাগলের মতো যুত করে কোমর দুলিয়ে চুদে যাচ্ছে সুদিপদা।মা শুয়ে চোখ বুজে আছে।কিন্তু চোখ দিয়ে জল গড়িয়ে যাচ্ছে। ৫মিনিট ধরে চুদে মায়ের গুদের গভীরে বীর্যপাত করে ক্ষান্ত হলো লুচ্চা বদমাইশ মাতাল সুদিপদা।